সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

বিএসএফ ক্যাম্প নয়, শ্রীনগর বিমানবন্দরই ছিল জঙ্গিদের আসল টার্গেট




Wednesday, 04 Oct, 10.31 am
শ্রীনগর: শ্রীনগর বিমানবন্দরের কাছে বিএসএফ ক্যাম্পে মঙ্গলবার সকালে জঙ্গি হামলা হয় বলে জানা যায়। জানা যায়, বিএসএফের ১৮২তম ব্যাটেলিয়নের প্রধান কার্য্যালয়ে হামলা চালায় জইশ ই মহম্মদের জঙ্গিরা, তবে তাদের আসল উদ্দেশ্যে ছিল বিমানবন্দরে হামলা করা। এই হামলায় শহিদ হন বিএসএফের সাব-ইনস্পেক্টর বি কে যাদব। আহত হন আরও তিন জন। তবে ভারতীয় নিরাপত্তা রক্ষীরাও প্রত্যুত্তরে ওই ক্যাম্পে ঢুকে তিন জঙ্গিকে খতম করে।
আরও পড়ুন: বিএসএফ ক্যাম্প লক্ষ্য করে ফের আক্রমণ পাকিস্তানের
সূত্র মতে, মঙ্গলবার খতম হওয়া এই তিন জঙ্গি ১১সদস্যের উস আফজল গুরু স্কোয়াডের অংশ ছিল। এই স্কোয়াডেরই তিন জঙ্গি এর আগে পুলওয়ামাতে পুলিশ লাইনে হামলা চালায়, যাতে ৮জন নিরাপত্তাকর্মী শহিদ হন।
শুধু তাই নয়, দেওয়ালে তারা আফজল গুরু স্কোয়াড লিখে দেয় বলে জানান সেসময় কর্তব্যরত এক আধিকারিক। জানা যায়, সেই সময় থেকে বাকি জঙ্গিরা মিলিটারি, বিএসএফ, সিআরপিএফ, জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশদের হামলা করার ছক কষতে থাকে।
আরও পড়ুন: 'ISI-এর মদতেই বিতর্কিত ভিডিও প্রকাশ করেছিল বিএসএফ জওয়ান'
টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর অনুযায়ী, বিএসএফ ক্যাম্পে নয়, সাম্প্রতিক এই জঙ্গি হামলার আসল টার্গেট ছিল শ্রীনগর বিমানবন্দর। এর রেইকিও করে রেখেছিল আফজল গুরু স্কোয়াড। বিএসএফ এবং সিআরপিএফের কড়া নিরাপত্তার মধ্যে মোড়া এই বিমানবন্দরে হামলা চালাতে না পেরেই বিএসএফ ক্যাম্পে তারা হামলা চালায় বলে মনে করা হচ্ছে। বিমানবন্দরে ঢুকে আরও বড় ধরনের নাশকতা চালানোর ছক ছিল বলেও মনে করছে কেউ কেউ।

মন্তব্যসমূহ

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

এক বিরলতর থেকে বিরলতর ব্যাক্তিত্ব যা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন।

তুফানগঞ্জ,স্টাফ রিপোর্টার:-আজ আমি এমন এক ব্যক্তিত্বের কথা বলব যা খুবই বিরল।তুফানগঞ্জ এন এন এম হাইস্কুলের প্রাক্তন বায়োলজি শিক্ষক আমাদের সবার প্রিয় মাননীয় কুশল ব্যানার্জি মহাশয় যার প্রত্যেক কথা ছিল অমৃততুল্য,তিনি তুফানগঞ্জ এন.এন.এম হাই স্কুলে মাত্র 25 বছর বয়সে যোগ দেন।তার ব্যাক্তিত্ব ছিল বিরলতর থেকে বিরলতর।আমি যখন প্রথমদিন স্কুলে আসি আমার চোখ প্রথমে খোঁজে সেই ব্যক্তিত্বকে নাম না জানার ফলে আমি চিনতে পারিনি সেদিন কালের প্রবাহে আমি পরিচিতি লাভ করি তার সম্বন্ধে।তিনি যখন ক্লাস করাতেন তার ক্লাসে পিন পড়ারও শব্দ পাওয়া যেত মানে একদম প্সিকটি নট।তিনি খুব বাঙ্গালী জাতির সংস্কৃতিতে নিজেকে আবদ্ধ রাখতে চান তিনি মাঝে মাঝে স্কুলে ধুতি-পাঞ্জাবি পড়ে আসতেন।আর তার সেই পরিচিত তুঁত কালারের ওয়াটার পোলো।তার ব্যাক্তিত্বে আছে নানা শিল্পের মিশ্রণ তিনি একাধারে শিক্ষক,ভালো কবি এবং একজন সুদক্ষ লেখক।তার অসাধারণ কবি প্রতিভার পরিচয় পাওয়া যায় তার ফেসবুক পোস্টে লেখা এই দু-লাইন থেকে -
"আকাশ, বৃষ্টি হও.... ষোড়শীর পিঠের ওপর কালো সাপের কুন্ডলী, তাতে একটা গন্ধরাজ বা শ্বেত করবী... কাজল চোখে দূর খেতের ছায়া পড়ে…

ফের প্রকাশ্যে বিয়ার পার্টি তুফানগঞ্জ রেল স্টেশনে।

তুফানগঞ্জ,স্টাফ রিপোর্টার:-দিনের আলোতেই প্রকাশ্যে বসল বিয়ার পার্টি।ঘটনাস্থল তুফানগঞ্জ রেল স্টেশন।অংশগ্রহণকারী সদস্যরা হল একদল কিশোর-কিশোরী।এই ঘটনায় আরও একবার প্রশ্নের মুখে পড়তে হল রেল কর্তৃপক্ষকে। মঙ্গলবার বিকেলে ৪টা নাগাদ আট-নয়জন কিশোর কিশোরীর একটি দল বিয়ার নিয়ে উপস্থিত হয় তুফানগঞ্জ রেল স্টেশনে।ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন স্টেশনে উপস্থিত নিত্যযাত্রীরা।এদিকে এই ঘটনা সম্পর্কে রেল কর্তৃপক্ষকে জিজ্ঞেস করা হলে তারা জানায় এই ঘটনাটি তাদের অজানা ছিল।
এমনিতেই তুফানগঞ্জ রেল স্টেশন নিয়ে তুফানগঞ্জবাসীর অভিযোগের শেষ নেই।নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই।আলোর ব্যবস্থাও নেই। নানান অপরাধমূলক কাজের স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠেছে তুফানগঞ্জ রেল স্টেশন।আরপিএফ ইন্সপেক্টর সঞ্জয় প্রসাদ জানান,‘তুফানগঞ্জ রেল স্টেশনে আলো বাড়ানোর আর্জি জানিয়েছিলাম।কিন্তু এখনও ব্যবস্থা হয়নি। এদিকে রেল পুলিশ সংখ্যায় কম।শুধুমাত্র একজন রেলপুলিশ দেওয়া হয়েছে তুফানগঞ্জ রেল স্টেশনে।তিনি রাতেই কাজ করেন।দিনের বেলায় এমন ঘটনায় রেল পুলিশের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানসূত্র বের করা হবে।’

কীভাবে কি হল ছেলেটির সঙ্গে?

স্টাফ রিপোর্টার:- তুফানগঞ্জের অধিবাসী সৌরদীপ পাল (ইনসেটে) বর্তমানে এক বিশেষ পরিচিত মুখ ফেসবুকে।তিনি নানা বিষয়ে মানুষকে মোটিভেট করেন।বর্তমানে তার ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম মিলিয়ে 14k ফলোয়ার কে না জানে তাকে?বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলেই চেনে তাকে।কিন্তু ইদানিং তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটছে।ডাক্তার দেখিয়েছেন ডাক্তার বলেছেন,রাত জেগে কাজ করার জন্য এরূপ অবস্থা স্বাস্থ্যের।